Wednesday, March 22, 2017

বাস্তবে চিকিৎসকদের সুখ কোথায় ?


                
আমাদের দেশে খুব ছোটবেলা থেকে মাথায় ঢুকিয়ে দেয়া হয়, বড় হয়ে ডাক্তার হতে হবে, কারণ হিসেবে বলা হয় ডাক্তারদের অনেক টাকা, ডাক্তাররা কখনো গরীব হয় না, অভাব ডাক্তারদের দরজায় কড়া নাড়ে না। আর এটা কে মানুষ অন্ধভাবে বিশ্বাস করে বড় হয়।
কিন্তু, বাস্তবে কি আসলেই, চিকিৎসকরা খুব সুখে আছে? আচ্ছা একটু সরকারী ক্যাডারদের দিকে তাকাই। চিকিৎসকরা যখন এমবিবিএস পাশ করে সরকারী ক্যাডারে ঢুকছে, তখন অন্য অারেকজন হয়ত, অনার্স পাশ করে ঢুকছে। এখন এখানে দেখা যাচ্ছে, সেই অনার্স পাশকৃত ব্যক্তিটি হয়ত মাস্টারস পাশ না করেও পদন্নোতি পাবে, কিন্তু এমবিবিএস পাশকৃত ব্যক্তিটিকে অধ্যাপক, কিংবা রেজিসট্রার হিসেবে পদন্নোতি পেতে কিন্তু অবশ্যই পোস্ট গ্রাজুয়েশন এর চৌকাঠ পার হতে হবে।
এক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, একই সাথে ক্যাডারে জয়েন করা সেই জেনারেল লাইন এর ব্যক্তিটি হয়ত পদন্নোতি পেয়ে প্রটৌকল পেয়ে ম্যাজিস্ট্রেট হয়ে গিয়েছে, আর সেই হতভাগ্য চিকিৎসক টি হয়ত উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্স এ ভাঙা চেয়ারে বসে মানবসেবা করে যাচ্ছে এবং মহান ব্যক্তিদের প্রহার এর স্বীকার হচ্ছে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে, এক দেশে কেন দুই নিয়ম হবে? সেই বাংলায় অনার্স করা ব্যক্তি টি পদন্নোতি পেয়ে, ম্যাজিসট্রেট হয়ে প্রটৌকল নিয়ে চলছে, বিশাল বাংলো পাচ্ছে, তাহলে সেই চিকিৎসক কি দোষ করলো? সে কি সেই বাংলায় অনার্স করা ব্যক্তি টি র চাইতে কম মেধাবী?
আরেক টা ব্যাপার, আমার খুব অবাক লাগে, বিশ্ববিদ্যালয় এর শিক্ষকরা সবাই ভালো কোয়ার্টার পায়, কিন্তু চিকিৎসকদের জন্য কি এরকম কোন কোয়ার্টার এর ব্যবস্থা করা হয়? যারা দিনের পর দিন কষ্ট করে, তারা কি সরকার এর পক্ষ থেকে ভালো কিছুর আশা করতে পারে না?
আমাকে কেউ কি বলতে পারবেন, এদেশে কি কোন কিছু ফ্রি পাওয়া যায়? হ্যাঁ, একটা জিনিস ফ্রি পাওয়া যায়, তা হচ্ছে চিকিৎসা। আপনাদের অবগতির জন্য বলি, এদেশে অনারারী বলে একটা বর্বর প্রথা রয়েছে। আর এই বর্বর প্রথা টা চিকিৎসক দের উপরই চাপিয়ে দেয়া হয়েছে।
যারা পোস্ট গ্রাজুয়েশন করবে, তাদের এই অনারারী করতে হয় সম্পূর্ন বিনা বেতনে। আই রিপিট একটা টাকা ও দেয়া হয়না তাদের। একবার চিন্তা করুন, যে বয়সে একজন চিকিৎসক এর অন্য বন্ধুরা, যারা অন্য প্রফেশন এ আছে, তারা লাখ টাকা বেতন পায়, বিদেশ এ ঘুরে ঠিক সেসময় সেই চিকিৎসক কে বিনা বেতনে দিনের পর দিন কামলা খাটতে হয়? এটা কি হতাশাজনক নয়?
আচ্ছা কোন ইঞ্জিনিয়ার কি ফ্রি তে আপনার বাড়ি র নকশা করে দিবে? কোন ব্যবসায়ী কি ফ্রিতে কিছু আপনার কাছে বিক্রি করবে? আচ্ছা খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থানও তো চিকিৎসা র মত মৌলিক অধিকার। তাহলে আপনারা তো সেসব মৌলিক অধিকার ফ্রি তে পান না, কিন্তু চিকিৎসা তো ফ্রিতে পাচ্ছেন? তারপরও কেন চিকিৎসক এর উপর আপনার এত রাগ?
একজন চিকিৎসক সারাজীবন কষ্ট করে শেষ জীবন এ এসে, যদি আপনার কাছ থেকে ১০০০ টাকা ভিজিট নেন, তাহলে কি তা খুব দোষের কিছু হবে? সে তো আর এমনি টাকা নেয়না, আপনাকে চিকিৎসা করেই টাকা নেন।
এই আপনি, চিকিৎসক কে টাকা দিতে হাত কাপলো, কিন্তু এই আপনি ই কিন্তু হাজার টাকা খরচ করে, রেস্টুরেন্ট এ খান, লাখ টাকা ঘুষ দেন, ফাইল টা যাতে ছাড়ানো যায়, এই আপনি লাখ টাকা খরচ করেন, ভ্রমণ এর জন্য। জানেন গরীব মানুষগুলা না চিকিৎসক দের কসাই বলে না, বলে আপনাদের মত টাকা ওয়ালা কর্পোরেট ব্যবসায়ীরা।
আপনারা দেখেন, চিকিৎসকরা কলমের খোচায়, টাকা নেন। কিন্তু, এই টাকা নিতে যে রাতের ঘুম হারাম করতে হয়, দিনের পর দিন ফ্রি খাটতে হয়, পরিবার কে বঞ্চিত করতে হয় তা কেউ ই দেখে না।
এই গল্প গুলো তাই অসমাপ্ত ই রয়ে যায়। যা কেউ জানতে চায় না, বুঝতেও চায় না।।

শাহারিয়ার মাহমুদ

শিক্ষার্থী, এমএইচ শমরিতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। 


Kindly Bookmark this Post using your favorite Bookmarking service:
Technorati Digg This Stumble Stumble Facebook Twitter

0 comments:

Post a Comment

 

| Medical Science © 2013. All Rights Reserved | Design by Md.Mahbubul Islam |